রাত ১০:৪৮ | ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২৩শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং
ব্রেকিং নিউজ

হামলার পরিণাম শুভ হবে না : খালেদা

স্টাফ রিপোর্টার :  বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ওপর অতর্কিত হামলার প্রতিবাদ জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে টুইট করেছেন দলের চেয়ারপারসন বেগম খালোদা জিয়া। রোববার বিকেলে পোস্ট করা টুইট বার্তায় তিনি লিখেছেন, ‘এ হামলা গণতন্ত্র, রাজনীতি, নাগরিক অধিকার ও পরমতসহিষ্ণুতার ওপর হামলা। এর পরিণাম শুভ হবে না।’

আরেকটি টুইট বার্তায় তিনি লিখেছেন, ‘বিএনপি মহাসচিবের ওপর ন্যক্কারজনক হামলার নিন্দা জানাবার ভাষা নেই।’

প্রসঙ্গত, রাঙামাটিতে পাহাড়ধসে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে যাওয়ার পথে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের গাড়িবহরে হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ইছাখালী এলাকায় বিএনপি নেতাদের গাড়িবহরে হামলার ঘটনা ঘটে। ওই হামলার পর রাঙামাটি যেতে না পেরে চট্টগ্রামে ফিরে যান মির্জা ফখরুলের নেতৃত্বে সাত সদস্যের প্রতিনিধি দল।

হামলার পর রোববার দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘যারা জাতীয়তাবাদী রাজনীতিতে বিশ্বাস করেন- এ আঘাত তাদের প্রতি। এ আঘাত মুক্তবুদ্ধি ও সুস্থ চিন্তার প্রতি আঘাত। সরকারের খারাপ কাজের প্রতিবাদ যারা করেন তাদের প্রতিও এ আঘাত। এ আঘাতের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের চরিত্র আরও বেশি উন্মোচিত হয়েছে।’

ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘পাহাড়ধসে নিহত ও ক্ষতিগ্রস্তদের সমবেদনা জানাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের নির্দেশে আমরা ঢাকা থেকে চারজনের একটি দল চট্টগ্রামে আসি। চট্টগ্রাম বিমানবন্দর থেকে আমরা রাঙামাটির উদ্দেশে রওনা হই। রাস্তায় জানতে পারি রাঙামাটির যে রাস্তায় ভাঙন শুরু হয়েছিল সেটি ভেঙে গেছে। ওই রাস্তা হয়ে রাঙামাটি যাওয়া সম্ভব নয়। তখন সিদ্ধান্ত নেই কাপ্তাই লেক হয়ে নদীপথে রাঙামাটি পৌঁছাব। যে কারণে বিমানবন্দর থেকে সরাসরি কাপ্তাই যাওয়ার জন্য বের হই। ইছাখালী বাজারে যেতে না যেতেই মুষলধারে বৃষ্টি শুরু হয়। এরই মধ্যে কিছু দূর যেতেই হঠাৎ অর্ধশত যুবক লাঠিসোটা, হকিস্টিক, রামদা ও বড় বড় পাথর নিয়ে আমাদের গাড়িতে আক্রমণ করে। প্রথমে তারা গাড়ির সামনের গ্লাস পাথর ছুড়ে ভাঙচুর করে। এরপর হকিস্টিক, লাঠিসোটা দিয়ে অনবরত ভাঙচুর চালানো হয়।’

‘তাদের হামলায় আমাদের কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী রক্তাক্ত হন, মেজর জেনারেল (অব.) রুহুল আলম চৌধুরী আহত হন, আমি নিজেও আহত হই।’

‘আওয়ামী লীগ সব সময় দাবি করে তারা গণতন্ত্র বিশ্বাস করে। আসলে তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না, ভিন্ন মতেও তাদের বিশ্বাস নেই। সহনশীলতা বলতে তাদের কিছুই নেই। এ আক্রমণ অবিশ্বাস্য এবং এখনও এটি আমাদের কাছে দুঃস্বপ্নের মতো মনে হচ্ছে। আমাদের পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের ওপর যদি এ ধরনের হামলা হয়, তাহলে সাধারণ মানুষের কী অবস্থা তা সহজেই অনুমেয়’- বলেন মির্জা ফখরুল।

‘আমরা তো সেখানে জনসভা অথবা পার্টির মিটিং করতে যাচ্ছিলাম না’ উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘আমরা দুর্গতদের, ক্ষতিগ্রস্তদের দলের পক্ষ থেকে সমবেদনা জানাতে যাচ্ছিলাম। এ আক্রমণের একমাত্র প্রতিবাদ তখনই হবে যখন আমরা জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে এ ফ্যাসিস্ট, অপশক্তিকে পরাজিত করে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে পারব।’

আক্রমণ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, এ আক্রমণ কোথা থেকে হতে পারে সেটি আপনারাই তদন্ত করে দেখবেন। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এটি করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হামলায় আহত স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, এটি একটি অবিশ্বাস্য ঘটনা। কোনো সভ্য দেশে এ ধরনের আক্রমণ হতে পারে না। ‘আমাদের রাজনীতি করতে দেবেন না, এখন ত্রাণও দিতে পারব না- এমনটি তো হতে পারে না’

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *