রাত ৩:০৭ | ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২১শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং
ব্রেকিং নিউজ

যাত্রীদের পদচারণায় সরগরম হয়ে উঠেছে স্টেশন এলাকা

স্টাফ রিপোর্টার : প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে নাড়ির টানে ছুটে চলছে মানুষ। ঘরমুখো মানুষের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছে রাজধানীর প্রতিটি বাসস্টেশন। ব্যতিক্রম নেই কমলাপুর রেলস্টেশনেও। সকাল থেকেই গ্রামের বাড়িতে ঈদ করতে যাওয়া লোকজনের ভিড় বাড়ছে কমলাপুরে। যাত্রীদের পদচারণায় সরগরম হয়ে উঠেছে স্টেশন এলাকা চত্তর। তবে গতকাল ট্রেনের শিডিউলে বিপর্যয় দেখা দিলেও আজ সকাল থেকে নির্ধারিত সময়েই ছেড়ে গেছে ট্রেন।

ট্রেনের আগাম টিকিট যারা কিনেছিলেন তারা গতকাল থেকে রাজধানী ছাড়তে শুরু করেছেন। তবে যাত্রার শুরুতে তাদের পড়তে হয় শিডিউল ভোগান্তিতে। গতকাল সকালে কমলাপুর স্টেশনে স্বয়ংক্রিয় সংকেতব্যবস্থা প্রায় তিন ঘণ্টার জন্য বিকল হয়ে পড়লে সময়সূচিতে যে বিপর্যয় দেখা দেয় তাতে বেশ কয়েকটি ট্রেনের সময় বিপর্যয় ঘটে। তবে দ্বিতীয় দিনের সকাল থেকেই যে কয়টি ট্রেন কমলাপুর ছেড়ে গেছে সেগুলো নির্ধারিত সময়েই ছেড়ে যাচ্ছে। গতকালের চেয়ে আজ যাত্রীদের ভিড় একটু বেশি লক্ষ্য করা গেছে। সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, আজ অফিস শেষে সরকারি অফিসগুলি ছুটি হয়ে যাবে, বিকাল থেকেই ঘরমুখো মানুষের ভিড় বাড় পারে।

বৃহস্পতিবার কমলাপুর স্টেশন থেকে ২ নং প্লাট ফর্ম থেকে নির্ধারিত সময় সকাল সাতটায় ছেড়ে যায় সোনার বাংলা এক্সপ্রেস ট্রেনটি। এর আগে নির্ধারিত সময়েই ছেড়ে যায় পারাবত ও সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেন দুটিও। উত্তরবঙ্গগামী রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনটিও তার নির্ধারিত সময়ে নয়টায় ছেড়ে গেছে কমলাপুর স্ট্রেশন থেকে। এছাড় ৩ নং প্লাটফর্মে ছাড়ার অপেক্ষায় রয়েছে মহানগর প্রভাতী, ৪নং প্লাট ফর্ম থেকে তিস্ত এক্সপ্রেস এবং সাত নং প্লাটফর্মে রয়েছে উপবন এক্সপ্রেস ট্রেন। ট্রেনগুলি নির্ধারিত সময়েই ছেড়ে যাবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

দ্বিতীয় দিনের ঈদযাত্রা নিয়ে কথা হয় রংপুর এক্সপ্রেসের যাত্রী এনামুল হাছানের সঙ্গে। ঢাকাটাইমসকে তিনি বলেন, ‘আজকে ভিড় থাকলেও তেন ঝামেলা হচ্ছে না। আজকে নির্ধারিত সময়েই ট্রেনগুলি ছেড়ে যাচ্ছে। আমাদের এটাও সময়মত ছেড়ে যাবে। আগের মতো সহ্যের মাত্রা ছাড়িয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়নি। গ্রামের বাড়িতে সবার সঙ্গে ঈদ করার জন্য একটু অপেক্ষা সহ্য করা যায়, এখন পৌঁছাতে দেরি না হলেই হয়।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী  বলেন, গতকাল কয়েকটি ট্রেনের সময়মত ছাড়তে একটু ঝামেলা হলেও আজকে সেই সমস্যা নেই। আজ ট্রেনগুলি নির্ধারিত সময়েই ছেড়ে যাচ্ছে। যাত্রীদের ভিড় এখন যা আছে, দিনের শেষভাগে তা বাড়বে বলে মনে করেন তিনি।

গতকাল রংপুর এক্সপ্রেস এক ঘণ্টা, দিনাজপুরগামী একতা এক্সপ্রেস নির্ধারিত সময়ের ৩০ মিনিট, ময়মনসিংহগামী ঈশা খাঁ এক্সপ্রেস এক ঘণ্টা, রাজশাহী এক্সপ্রেস দুই ঘণ্টা, চট্টলা এক্সপ্রেস এক ঘণ্টা ৩০ মিনিট দেরিতে ছেড়ে যায়। চট্টগ্রাম, সিলেট ও উত্তরবঙ্গ পথের ট্রেনগুলোতে যাত্রীদের ভিড় থাকলেও উপচে পড়া ছিল না। রাত আটটা পর্যন্ত ১৬টি আন্তঃনগর, ২৪টি মেইল ও কমিউটার ট্রেন কমলাপুর ছেড়েছে। রাতে বিভিন্ন গন্তব্যে আরও ছয়টি আন্তঃনগরসহ নয়টি ট্রেন কমলাপুর ছেড়েছে।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *