রাত ১১:১৫ | ৬ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ১৯শে জানুয়ারি, ২০১৮ ইং
ব্রেকিং নিউজ

বিদ্যুৎ বিভ্রাট আটোয়ারীতে পল্লী বিদ্যুতের ফিডার দুই যেন সতিনের সন্তান

হাসিবুর রহমান, আটোয়ারী (পঞ্চগড়) প্রতিনিধি ঃ ঠাকুরগাঁও পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির আওতাধীন পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার ফিডার-২ এর গ্রাহকরা চরম ভোগান্তিতে দিনাতিপাত করার অভিযোগ উঠেছে। কর্তৃপক্ষের খামখেয়ালী তথা ভুল পরিকল্পনার দরুন এ ফিডারে প্রতিদিনই অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিভ্রাট এটা দৈনন্দিন বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। সেই সাথে গত এক বৎসরে উপজেলায় নতুন গ্রাহক বেড়েছে প্রায় ৩ হাজারের অধীক।। বিদ্যুৎ বিভাগ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার পল্লী বিদ্যুতের সাব স্টেশন হতে মোট ৫টি ফিডার দ্বারা আটোয়ারী উপজেলাসহ পঞ্চগড় সদরের বেশকিছু অংশ পরিচালিত। ৫টি ফিডারের মধ্যে ফিডার-২ এর গ্রাহক সংখ্যা প্রায় ১০ হাজার যা বাকী ৪টি ফিডারের থেকেও বেশী। এ ফিডারের গ্রাহকদের অভিযোগ গড়ে বিদ্যুৎ থাকে ৬ থেকে ৭ ঘন্টা। বিদ্যুতের লাইন আছে কিন্তু বিদ্যুৎ নেই। বিদ্যুৎ নেই এটাই স্বাভাবিক বিদ্যুৎ আসবে এটা অস্বাভাবিক। ফিডার-২ এ অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারনে জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে পরেছে। এতে স্কুল-কলেজ পড়–য়া বিভিন্ন শিক্ষার্থীদের লেখা-পড়ায় ব্যাপক ক্ষতি সাধন হচ্ছে। পাশাপাশি এলাকার মুসুল্লীদের অভিযোগ নামাজের সময়েও ঠিকমতো বিদ্যুত পাওয়া যায়না।
এ প্রসঙ্গে নলপুখুর ীগ্রামের সাবেক ছাত্রনেতা সেলিম মোর্শেদ মানিক, কালিকাপুর গ্রামের মো: লিয়াকত আলী, গোয়ালদীঘি গ্রামের সিনিয়র সাংবাদিক মো: শাহীনুর ইসলাম (শাহীন), তোড়িয়া গ্রামের তরিকুল ইসলাম, জয়নুল হক, সুখাতী গ্রামের বেলাল হক এবং মির্জাপুর গ্রামের মির্জা শাহীন জানান, পল্লী বিদ্যুতের ইনচার্জ ইচ্ছে করেই ফিডার-২ এ অতিরিক্ত লোডশোডিং দিচ্ছেন। একটু বৃষ্টি হলে বা আকাশে মেঘদেখা গেলেই বিদ্যুৎ থাকেনা। কিন্তু অন্যান্য ফিডারে বিশেষ করে উপজেলা সদরে সর্বদা বিদ্যুত থাকে। তারা আরো অভিযোগ করেন, বেশীর ভাগ সময় ইনচার্জ ফোন বন্ধ করে রাখেন বা তাকে ফোনে পাওয়া যায়না। প্রতিটি লোডশোডিং দেড় ঘন্টা করে নির্ধারণ করা হয়েছে। সে হিসেবে পাচঁটি ফিডারে দেড় ঘন্টা করে লোডশোডিং হলে সাড়ে সাত ঘন্টা অন্তর লোডশোডিং হওয়ার কথা কিন্তু ফিডার-২ এ ২৪ ঘন্টায় ১০ থেকে ১২ বার লোডশোডিং দেওয়া হয়।
এ ব্যাপারে আটোয়ারী পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ইনচার্জ মো: মকছেদুর রহমানের সাথে কথা বললে তিনি জানান, ৫টি ফিডারের জন্য প্রতি দিন কমপক্ষে ৪ মে:ও: বিদ্যুৎ প্রযোজন। এর মধ্যে শুধু মাত্র ফিডার-২ এ বিদ্যুতের চাহিদা থাকে প্রতি দিন ২ মে: ও:। অথচ বর্তামানে দেড় থেকে দুই মে: ওয়াটের বেশী সরবরাহ থাকেনা এ সাব-ষ্টেশনে। তার মতে ফিডার দুইয়ের গ্রাহক অনুযায়ী সেটাকে আরো একটি ফিডারে বিভক্ত করা প্রয়োজন। বিষয়টি সম্পর্কে পঞ্চগড় জোনাল অফিসের ডি,জি,এম কে মোবাইল করেও ফোনে পাওয়া না গেলে ঠাকুরগাঁও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জি,এম মো: ইনছের আলী জানান, পঞ্চগড় জোনাল অফিসে যোগাযোগ করেন তবে সব ফিডারে সম পরিমান লোড শেডিং দেয়ার নির্দেশনা থাকে।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *