রাত ১০:৫৩ | ৬ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ১৯শে জানুয়ারি, ২০১৮ ইং
ব্রেকিং নিউজ

প্রধানমন্ত্রীর কাছে মজুরি কমিশনের প্রতিবেদন পেশ

স্টাফ রিপোর্টার :  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে মজুরি কমিশনের প্রতিবেদন পেশ করা হয়েছে।  মঙ্গলবার (৪ জুলাই) ‘জাতীয় মজুরি ও উৎপাদনশীলতা কমিশন প্রতিবেদন-২০১৫’ শিরোনামের প্রতিবেদনটি প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেওয়া হয়। কমিশনের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম খান প্রতিবেদনটি পেশ করেন। এতে ছয়টি খাতের ৯১টি শিল্প প্রতিষ্ঠানের ৬০ হাজার শ্রমিকের জন্য নতুন বেতন কাঠামোর প্রস্তাব করা হয়েছে।

যথাসময়ে প্রতিবেদন পেশ করায় এ সময় প্রধানমন্ত্রী কমিশনকে ধন্যবাদ জানান। এই প্রতিবেদন বাস্তবায়নের জন্য সরকার একটি কমিটি গঠন করবে বলেও প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন। তিনি বলেছেন, ‘শ্রমজীবী মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তনে কাজ করে যাচ্ছে এবং উন্নত এক বেতন কাঠামোর প্রবর্তন করেছে সরকার। যা ভবিষ্যতে কেউ চাইলেই পরিবর্তন করতে পারবে না।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটা যে আমাদেরই দেশ, এটা সবার চিন্তা-ভাবনায় থাকা উচিত, কাজেই এই দেশকে আমাদের এগিয়ে নিতে হবে। সরকারের একটি অন্যতম লক্ষ্য হচ্ছে শ্রমজীবী মানুষের জন্য একটি সুষম বেতন কাঠামো গড়ে তোলা। যেন তারা একটু স্বচ্ছলভাবে জীবন যাপন করতে পারে। যে কারণে মুদ্রাস্ফীতির ওপর ভিত্তি করেই সরকার তাদের বাৎসরিক বেতন বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘শ্রমিকদের বেতন তাদের উৎপাদনের সঙ্গে সম্পৃক্ত, কেননা উৎপাদন ও মান রক্ষার ওপরই একটি শিল্প প্রতিষ্ঠানের ভিত্তি জড়িত। উৎসাহ প্রদানের জন্য ভালো শ্রমিকদের অবশ্যই ভালো প্রণোদনার বন্দোবস্ত থাকতে হবে।’

সরকার বঙ্গবন্ধুর পদাঙ্ক অনুসরণ করে চলছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারে থাকলেই কেবল দেশের সাধারণ জনগণ উন্নয়নের ছোঁয়াটা পায়।’

শ্রমজীবী মানুষের প্রতি পাকিস্তানি জান্তার শোষণের কথা স্মরণ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘সেই শোষণের কবল থেকে মুক্তির জন্যই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়। স্বাধীনতার পরে বঙ্গবন্ধু সব শিল্প কারখানা রাষ্ট্রীয় মালিকানায় নিয়ে আসেন। কেননা, যুদ্ধে প্রায় ধ্বংসপ্রাপ্ত সেসব শিল্প প্রতিষ্ঠান পুনর্নির্মাণে সক্ষম তখন কোনও শিল্পপতি ছিল না।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১৯৯৬-২০০১ মেয়াদে ক্ষমতায় থাকার সময়ই আওয়ামী লীগ সরকার এরকম ৯টি রুগ্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানকে আবারও উৎপাদনে ফেরায় ও লাভজনক করে তোলে। অন্যদিকে, বেতন-ভাতার দাবিতে রমজান মাসে আন্দোলনরত শ্রমিকদের মিছিলে গুলি করে বিএনপি-জামায়াত সরকার ১৭ জনকে হত্যা করে।’

কমিশনের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘শ্রমিকদের থেকে প্রাপ্ত প্রাথমিক তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করেই এই প্রতিবেদন প্রস্তুত করা হয়েছে। এতে তাদের জন্য বেতন-ভাতার ১৬টি ধাপ প্রস্তাব করা হয়েছে।’

এ সময় শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু, শ্রম সচিব মিখাইল শিপার, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব সুরাইয়া বেগম, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম এবং ওয়েজ কমিশনের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। সূত্র: বাসস।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *