রাত ১২:৪৩ | ৩রা পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ১৭ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
ব্রেকিং নিউজ

প্রচারণার ধাপ্পাবাজি ছাড়া এ বাজেট আর কিছুই নয়: বিএনপি

স্টাফ রিপোর্টার :  ২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটকে ‘বঞ্চনার বাজেট’ হিসেবে উল্লেখ করেছে বিএনপি। এ বাজেট জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য নয় উল্লেখ করে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘চার লাখ ২৬৬ কোটি টাকার বাজেটে ১ লাখ ১২ হাজার ২৭৫ কোটি টাকার ঘাটতি দেখিয়ে যে বিরাট আকারের বাজেট- এর অর্থ কী? এটা নিছক বিরাট অংকের বাজেট প্রচারণার ধাপ্পাবাজি ছাড়া আর কিছুই নয়। এই বাজেট মানুষকে বোকা বানানোর বাজেট, প্রতারণার বাজেট।’

রবিবার (১১ জুন) সকালে গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত আনুষ্ঠানিক বাজেট প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এভাবেই দলের অবস্থান ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, ‘জনগণের কাছে সরকারের কোনও দায়বদ্ধতা নেই বলেই এই বঞ্চনার বাজেট জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘জনগণের প্রতিনিধিত্বহীন পার্লামেন্টে যেখানে কোনও জবাবদিহিতা নেই, সেই পার্লামেন্টে এই বাজেট পেশ করা হয়েছে। এখানে সরকারের দায় কোথায়?’

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান ও আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। এসময় তারা সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।

ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘এমন অনেক পণ্যের তালিকা দেওয়া হয়েছে যেগুলো মানুষের কোনও প্রয়োজনেই আসে না। কোনও মানুষ ব্যববহার করে না।’ প্রায় সোয়া এক ঘণ্টার সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মহাসচিব শুরুতেই বলেন,  ‘টাকার অংকের দিক থেকে এই বাজেট বাংলাদেশের জন্য সর্বকালের বৃহত্তম বাজেট। এই বাজেট বিশ্লেষণ করে আমরা যুগপৎ বিস্মিত, ক্ষুব্ধ এবং হতাশ হয়েছি। অতীত অভিজ্ঞতার আলোকে আমরা বলেতে পারি এই বাজেট বাস্তবায়নযোগ্য নয়। কেবল অলীক স্বপ্ন-কল্পনাই এই প্রস্তাবিত বাজেটের ভিত্তি।’

ফখরুল বলেন, ‘বর্তমান সরকার যে সব মেগা প্রকল্প হাতে নিয়েছে সেগুলোর কাজ ২০১৭-১৮ অর্থবছরের মধ্যে বাস্তবায়ন করাই সরকারের অঘোষিত লক্ষ্য। এর জন্য প্রয়োজন হবে প্রচুর অর্থের। সেই অর্থের যোগান দেখানোর জন্যই জনগণের ওপরে করের বোঝা চাপিয়ে একটি গাণিতিক হিসেবের বাজেট হিসেবে এই বাজেট পেশ করা হয়েছে। পরবর্তী নির্বাচনের আগে সরকার এইসব প্রকল্পকে নির্বাচনি প্রচারণার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করবে।’

বিএনপির মহাসচিব বলেন, “অর্থমন্ত্রী তার বাজেট ডকুমেন্ট এর শিরোনামের সঙ্গে দুটি স্লোগান ব্যবহার করেছেন। স্লোগান দুটি হলো ‘উন্নয়নের মহাসড়কে বাংলাদেশ: সময় এখন আমাদের’। কিন্তু এই ‘উন্নয়নের মহাসড়ক’ খানাখন্দকে ভরা।”

ফখরুল জানান, ‘এই বাজেটের কিছু কিছু প্রস্তাব আমাদের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকে বড় ধরনের ঝুঁকির মধ্যে ফেলতে পারে। লোকের চোখে দৃশ্যমান উন্নয়ন করতে গিয়ে, দ্বিগুন চারগুন অর্থ ব্যয় করে একদিকে সম্পদের অপচয় ঘটানো হচ্ছে, অন্যদিকে রেন্ট-সিকিং বা দুর্নীতির সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে।’

এক প্রশ্নের উত্তরে ড. আবদুল মঈন খান বলেন, ‘মূল অর্থনীতি পারফর্ম করছে না বলেই প্রবৃদ্ধি বাড়লেও বেশি ট্যাক্স আদায় করছে। আর তারা ঘুরিয়ে ট্যাক্স আদায় করছে।’

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *