রাত ১২:৪৩ | ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২৩শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং
ব্রেকিং নিউজ

জুলাইয়ে ফোরজি’র লাইসেন্স দেওয়ার পরামর্শ, গাইডলাইন চূড়ান্ত হয়নি এখনও!

প্রযুক্তি ডেস্ক :  জুলাইয়ে চতুর্থ প্রজন্মের নেটওয়ার্ক বা ফোরজি সেবার লাইসেন্স দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হলেও এখনও এ বিষয়ক গাইডলাইন চূড়ান্ত হয়নি। অন্যদিকে যে খসড়া গাইডলাইন তৈরি হয়েছে, তাতে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর কোনও মতামত নেওয়া হয়নি বলেও অভিযোগ রয়েছে। অপারেটররা এখনও অপেক্ষায়, গাইডলাইন চূড়ান্ত করার আগে তাদের মতামত নেওয়া হবে।
গত ৮ মে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সম্মেলনকেন্দ্রে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের কার্যক্রম পর্যালোচনা সংক্রান্ত সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রী তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। সভার আলোচনা অনুযায়ী, ফোরজি গাইডলাইনে প্রয়োজনীয় সংশোধনী প্রস্তাবপূর্বক বিটিআরসি ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে পাঠাবে। জুলাই ২০১৭-এর মধ্যে ফোরজি লাইসেন্স প্রদান করতে হবে।
বৈঠক শেষে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, তারা ফোরজির খসড়া নীতিমালা বিটিআরসির কাছ থেকে পেয়েছেন। লাইসেন্সের গাইডলাইন ও তরঙ্গ বিষয়ক নীতিমালা দ্রুত চূড়ান্ত করা হবে যেন জুলাই নাগাদ ফোরজি’র লাইসেন্স দেওয়া যায়।
এদিকে, জুলাই মাস আসতে আর অল্প কিছুদিন বাকি আছে। এই অল্প সময়ে ফোরজি’র লাইসেন্সের গাইডলাইন চূড়ান্ত করে নিলাম আয়োজন করা অসম্ভব বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা ওই বৈঠকে ফোরজি লাইসেন্স দেওয়ার তাগিদ দিলেও অগ্রগতি খুবই সামান্য বলে জানা গেছে। এমনকি গাইডলাইনও চূড়ান্ত করা হয়নি। সর্বশেষ জানা গেছে, মোবাইল ফোন অপারেটররা এখন গাইডলাইনের কনসালটেশনের জন্য অপেক্ষা করছেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল অপারেটর্স, বাংলাদেশের (অ্যামটব) মহাসচিব টিআইএম নূরুল কবির বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা চাই ফোরজি নিয়ে একটা কনসালটেশন হোক। বিটিআরসি এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ থেকে আমাদের বলা হয়েছে একটা কনসালটেশন হবে। ওটা হলে আমরা আমাদের মতামত জানাতে পারব, দেখতে পারব ফোরজি গাইডলাইনে কী থাকছে।’ তিনি জানান, অতীতে টুজি ও থ্রিজির গাইডলাইনের সময় এমন হয়েছে। আশা করছি এবারও হবে।
এর আগে, গত এপ্রিল মাসে অ্যামটব ফোরজি গাইডলাইনের বিষয়ে একটি আপত্তিপত্র ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে পাঠায়। তাতে জানানো হয়, বিটিআরসি ওই খসড়া গাইডলাইন তৈরির আগে অ্যামটব তথা মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর মতামত নেয়নি।
প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের শুরুর দিকেই বাতাসে ভাসতে থাকে— দেশে আসছে ফোরজি। কিন্তু ওই বছর তরঙ্গের নিলাম আয়োজন সম্ভব হয়নি। গত বছরের অক্টোবর মাসে অনুষ্ঠিত ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৬-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছিলেন, ২০১৭ সালে সারাদেশে ফোরজি চালু হবে। এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টাও বলেছিলেন, ২০১৭ সালে দেশে ফোরজি চালুর পদক্ষেপ হিসেবে স্পেক্ট্রামের নিলাম অনুষ্ঠিত হবে এবং বর্তমান সরকারের মেয়াদের মধ্যেই এই সেবা চালু করা হবে। এদিকে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম গত ডিসেম্বরের শেষ দিকে নতুন বছরে ফোরজি বা এলটিই (লং টার্ম ইভোলিউশন) সেবা চালু হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছিলেন।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *