সন্ধ্যা ৭:৩৩ | ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২১শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং
ব্রেকিং নিউজ

‘একটি ফুলের তোড়ার পরিবর্তে একটি বই দাও’

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক :  নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিত্য-নতুন স্লোগান নিয়ে আসছেন দেশবাসীর সামনে। শনিবার নতুন এক স্লোগান এনে তিনি বলেন, ‘একটি ফুলের তোড়ার পরিবর্তে একটি বই দাও।’

দেশটির কেরালা প্রদেশে ‘মাসব্যাপী পাঠ উদযাপন’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে ভারতের এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, শুভেচ্ছা হিসেবে মানুষকে ফুলের তোড়া দেয়ার পরিবর্তে আমি দেশের জনগণকে একটি করে বই দেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

মোদি বলেন, ‘পড়াশুনার চেয়ে আর কোনো আনন্দ মহৎ হতে পারে না এবং জ্ঞানের চেয়ে আর কোনো শক্তিই বড় নয়। স্বাক্ষরতার হারে কেরালা পুরো দেশের জন্য অনুপ্রেরণা।’

কেরালায় স্বাক্ষরতা হার প্রায় শতভাগ উল্লেখ করে মোদি বলেন, উচ্চ স্বাক্ষরতা হারের জন্য রাজ্যের মানুষের অবদান রয়েছে। শিক্ষা ক্ষেত্রে কেরালার সাফল্য শুধুমাত্র সরকারিভাবে অর্জন করা সম্ভব ছিল না। এক্ষেত্রে রাজ্যের নাগরিক এবং সামাজিক সংগঠনগুলো সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছে।

কেরালার ওই অনুষ্ঠানে সমাজ সংস্কারের ক্ষেত্রে অবদান রাখা ভারতীয় সমাজ সংস্কারক পিএন প্যানিকারকে স্মরণ করেন মোদি। ভারতীয় এই সমাজ সংস্কারক বিশ্বাস করতেন, সমাজের জন্য গ্রন্থাগার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ১৯৪৫ সালে ৪৭টি লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে প্যানিকার ‘গ্রন্থশালা সংগ্রাম’ নামে একটি নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করেন। বর্তমানে কেরালার বিভিন্ন শহর এবং গ্রামে প্যানিকারের এই নেটওয়ার্কের ৬ হাজারেরও বেশি লাইব্রেরি রয়েছে।

গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন প্যানিকারের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে নরেন্দ্র মোদি ‘বাঁচে গুজরাট’ নামে একই ধরনের একটি সামাজিক আন্দোলনের শুরু করেছিলেন বলে কেরালার ওই অনুষ্ঠানে জানান মোদি।

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে এ ধরনের সামাজিক আন্দোলন ডিজিটাল পদ্ধতিতে করা উচিত। আমি জনগণের ক্ষমতায়নে বিশ্বাস করি। আমি এ ধরনের সামাজিক আন্দোলন নিয়ে বড় স্বপ্ন দেখি। একটি ভালো সমাজ ও রাষ্ট্র গঠনে তাদের সক্ষমতা রয়েছে।’

মোদি বলেন, ‘আমরা একসঙ্গে ভারতকে আবারও প্রজ্ঞা ও জ্ঞানের ভূমি হিসেবে গড়তে পারি।’

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *