রাত ১২:২৭ | ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২৫শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং
ব্রেকিং নিউজ

উমর আকমলের জন্য পাকিস্তান দলের দরজা বন্ধ!

স্টাফ রিপোর্টার :  বিতর্কে এক-দুবার জড়িয়েই যদি খান্ত হতেন উমর আকমল! কিন্তু তাতে কি আর ঠিকমতো ঘুমুতে যেতে পারবেন ২৭ বছরের পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান! তাই বারবার বিকর্তে জড়ানোটা যেন নেশায় পরিণত হয়েছে এই ক্রিকেটারের। সম্প্রতি পাকিস্তানের দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ মিকি আর্থারকে একহাত নিয়ে পিসিবির কাছ থেকে পেয়েছেন কারণ দর্শানোর নোটিশ। আকমলের দাবি, আর্থার তাকে বাজেভাবে অপমান করেছেন। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে ফিটনেসের অজুহাতে দেশে ফিরত পাঠানো হয় তাকে। আকমল-আর্থারের এই বিতর্ক প্রসঙ্গে মুখ খুলেছেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার আমির সোহেল। দেশটির সাবেক এই টেস্ট ওপেনার মনে করেন, আর্থারকে নিয়ে এমন মন্তব্যের মধ্য দিয়ে পাকিস্তান দলে ফেরার সম্ভাবনা শেষ হেয়ে গেল আকমলের।

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে দলের সদস্য হয়েই ইংল্যান্ডে গিয়েছিলেন আকমল। কিন্তু ফিরে আসতে হয় ফিটনেস টেস্টে ফেল করে। একই কারণে খেলতে পারেননি ইংল্যান্ডের আসরের আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজেও। এখন এমন অবস্থা নিজেই এতো জটিল করে ফেলেছেন যে আবার পারফর্ম করেও দলে ফেরা তার জন্য অসম্ভব হয়ে উঠতে পারে। আকমল তাই হতাশা থেকেই আর্থারকে নিয়ে অভিযোগ করেছেন বলে দাবি সোহেলের,‘পাকিস্তান প্রধান কোচ মিকি আর্থারের প্রতি আকমলের অবমাননার অভিযোগে মনে হয় পাকিস্তানের ক্রিকেটে নতুন বিকর্ত ডানা বাঁধতে যাচ্ছে। আমার মতে, এতে কোনো সন্দেহ নেই যে ক্যারিয়ারে এ পর্যায়ে এসে হতাশা থেকেই উমর আকমল এমনটা করছে। এটা ঠিক যে সে দারুণ প্রতিশ্রুতি নিয়েই ক্যারিয়ার শুরু করেছিল। কিন্তু সে তা বাস্তবায়নে ব্যর্থ হয়েছে এবং কখনো তা পূরণ করতে পারেনি।

এরপরই আমির সোহেল বলে দেন আকমলের বর্তমান বিতর্ক তৈরির ভবিষ্যৎ সম্ভাব্য ফলের কথা, ‘এই বিতর্কের মধ্য দিয়ে বর্তমান প্রধান কোচের অধীনে আকমলের দলে ফেরার সম্ভাবনা শেষই হয়ে গেছে। তার আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার এখানেই থেমে যেতে পারে। তবে সত্যিই যদি যে কঠোর পরিশ্রম করে এবং সব দিকে থেকেই অন্যদের চেয়ে আলাদা প্রমাণ করতে পারে, সেক্ষেত্রেই কেবল দুয়ার খুলতে পারে।’

আকমল শুধু আর্থারের প্রতি প্রকাশ্যে অভিযোগ এনেই চুপ থাকেন নি। প্রধান নির্বাচক ইনজামাম-উল-হক ও বোলিং কোচ মুশতাক আহমেদকে নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। যেখানে পাকিস্তানি ব্যাটম্যানের দাবি, আর্থার যে তাকে অপমান করেছেন তার সাক্ষী ইনজামাম ও মুশতাক আহমেদ। তারা এখন যদি তারা তা অস্বীকার করেন, তবে সেটা হবে মিথ্যাচার। এদিকে মিকি আর্থার আকমলের অভিযোগ নিয়ে বলেছেন,‘সে তার ব্যাটিংয়ে গ্র্যান্ড ফ্লাওয়ারের সার্ভিস প্রয়োগ করতে চেয়েছিল। আমি বলেছিলাম, সে অবশ্যই সাপোর্ট স্টাফদের সহায়তা নিয়ে তা অর্জন করতে পারে। তবে তাকে আগে ক্লাব ক্রিকেটে খেলতে হবে। অন্যথায় কেউ অনুমতি দেবে না।’

এদিকে আমির সোহলে এও মনে করেন, আকমলে এই বারবার বিকর্তে জড়ানোটা রুখতে ব্যর্থ পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডই। প্রতিভাবান খেলোয়াড়দের এসব ব্যপারে আলাদা নজর দেওয়ার ক্ষেত্রে অন্য দেশের তুলনায় পিসিবি পিছিয়ে বলে দাবি সোহেলের।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *