সন্ধ্যা ৭:৩০ | ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২১শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং
ব্রেকিং নিউজ

“আমি ডায়নাকে খুন করেছি”-ব্রিটিশ এজেন্টের স্বীকারোক্তি

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক :  দুর্ঘটনায় প্রিন্সেস ডায়নার মৃত্যু হয়নি, বরঞ্চ হত্যা করা হয়েছে তাঁকে। এ চ্যাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে এক ব্রিটিশ এজেন্ট। মঙ্গলবার ভোরে ব্রিটিশ গোয়েন্দা সংস্থা এমআই-৫ এর সদস্য জন হপকিন্স এ তথ্য প্রকাশ করেন। ইউর নিউজ ওয়ার ডটকম নামক এক সংবাদ মাধ্যম এ সংবাদ প্রকাশ করে। হপকিন্সের স্বীকারোক্তিমূলক একটি ভিডিও-ও প্রকাশ করে তারা।

স্বীকারোক্তিমূলক ভিডিওতে হপকিন্স বলছেন, “আমি ডায়নাকে খুন করেছি”। ৮০ বছর বয়সী এই ব্রিটিশ এজেন্ট বার্ধক্যজনিত কারণে এখন মৃত্যুশয্যায় আছেন। লন্ডনের একটি হাসপাতাল থেকে দিনকয়েক আগে ছাড়া পেয়েছেন তিনি। দীর্ঘদিন ব্রিটেনের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার দায়িত্বে পালন করা হপকিন্স, ডায়না হত্যার পাশাপাশি বিভিন্ন গুপ্তহত্যার কথা স্বীকার করেন। এর জন্য সাতজনের একটি গুপ্তঘাতকের টিমের কথাও উল্লেখ্য করেন তিনি। এখন তাঁর মাধ্যমে আবারো আলোচনায় আসলো ডায়না মৃত্যুর রহস্য বিতর্ক।

ব্রিটেনের রাজপরিবারের উত্তরাধিকারী প্রিন্স চার্লসের সাবেক সহধর্মিনী প্রিন্সেস অফ ওয়েলস খ্যাত ব্রিটিশ যুবরানি ডায়নার ছিল জগতজোড়া পরিচিত। তাঁর সৌন্দর্য্য যেন হার মানাতো সিনেমার তারকাদেরও। এছাড়া বিভিন্ন দাতব্য কর্মকান্ডের কারণে প্রশংসিত ছিলেন। ১৯৯৭ সালের ৩১ আগস্টে মর্মান্তিক গাড়ি দুর্ঘটনায় বন্ধু দোদি ফায়েদসহ প্রাণ হারিয়েছিলেন তিনি। জানা যায়, পাপারাৎজিদের হাত থেকে বাঁচতে দ্রুতবেগে গাড়ি চলার ফলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে প্যারিসের একটি টানেলেই দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান তাঁর দেহরক্ষী ও চালক। দুর্ঘটনার পরই ডায়নার দেহরক্ষীর বাবা অভিযোগ করেছিলেন, রাজপরিবারের ষড়যন্ত্রের কারণেই খুন হন তিনি। দুর্ঘটনা ছিল আসলে সাজানো। তবে এর কোন তথ্য প্রমাণ না মেলায় এ অভিযোগ গুরুত্ব পায়নি তখন। তবে এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছিল সে সময়।

হপকিন্স জানান, দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়নি ডায়নার, ব্রিটেনের রাজপরিবারের নির্দেশেই তাঁকে হত্যা করেছেন তিনি। ১৯৭৩–১৯৯৯ সালের মধ্যে ২৩টি গুপ্তহত্যায় তিনি জড়িত ছিলেন বলেও জানান এই এমআই–৫ এজেন্ট। তার মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য প্রিন্সেস ডায়নার হত্যা। গাড়ি চালকের মদ্যপ থাকার যে অভিযোগ উঠেছিল সেগুলোকে সাজানো বললেন তিনি। তবে এ হত্যায় সম্মতি না থাকলেও রাজপরিবারের নির্দেশ মানতে বাধ্য হয়েছেন তিনি।

প্রিন্সেস ডায়নার মৃত্যু রহস্য উদঘাটন হয়নি গত বিশ বছরেও। তবে হত্যাকান্ডের অভিযোগ উঠলেও এর পিছনে কি কারণ থাকতে পারে তা নিয়ে চলে নানা জল্পনা কল্পনা। ডায়ানার বয়ফ্রেন্ড দোদির বাবা মুহাম্মদ ফায়েদ অবশ্য ডায়ানার মৃত্যুর কারণ উল্লেখ করেছিলেন যে ব্রিটিশ সিক্রেট সার্ভিস ডায়ানাকে একজন মুসলিমকে বিয়ে থেকে বিরত রাখতে হত্যা করেছিলেন। সে সময় বন্ধু দোদি ফায়েদের সাথে গভীর প্রণয় সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন এ ব্রিটিশ রাজবধুর বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠে।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *