রাত ১২:৪৮ | ৩রা পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ১৭ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
ব্রেকিং নিউজ

আগাম টিকিট বিক্রির প্রথম দিনে যাত্রীদের তেমন সাড়া নেই

স্টাফ রিপোর্টার : ঈদের বাড়ি ফিরতে বাসের আগাম টিকিট বিক্রির প্রথম দিনে যাত্রীদের তেমন সাড়া নেই। গাবতলী টার্মিনালের বাস কোম্পানির কাউন্টারগুলো নেই টিকিট প্রত্যাশীদের চিরচেনা ভিড়। পরিবহন কোম্পানিগুলো ধারণা করছে, গত রাত থেকে টানা বৃষ্টি শুরু হবার এই দশা।

আজ সোমবার থেকে বাসের আগাম টিকিট বিক্রি করা হবে, আগেই ঘোষণা ছিল। সেই অনুযায়ী বাস কোম্পানিগুলোর প্রস্তুতিও ছিল।গাবতলী ও কল্যাণপুর ঘুরে দেখা গেছে, কাউন্টারগুলোতে টিকিট বিক্রির প্রস্তুতি ছিল সকাল থেকেই। তবে যাত্রীদের লাইন তৈরি হয়নি একেবারেই। তবে টিকিট বিক্রেতারা জানান, তথ্য প্রযুক্তির ছোঁয়া লেগেছে পরিবহন কোম্পানিগুলোতেও। অনেক প্রতিষ্ঠানেই অনলাইনে টিকিট কেনার সুযোগ আছে। আর পরিচিতজনরা ফোনেও টিকিট বুকিং দেন। ফলে কাউন্টারে ভিড় নেই মানেই টিকিটের চাহিদা নেই, এমনটা নয়।

বিক্রেতারা জানান, ঈদের আগে শেষ কর্মদিবস ২২ তারিখ হওয়ায় ছুটি সেদিন রাত থেকে শুরু করে ২২, ২৩ ও ২৪ জুনের টিকিটই বেশ চাইছে যাত্রীরা। এরই মধ্যে অধিকাংশ টিকিট আগে থেক বুকিং দেওয়া বা বিক্রি হয়ে গেছে।

গাবতলী বাস টার্মিনালের ঝিনাইদহ-চুয়াডাঙ্গা গামী পূর্বাশা পরিবহনের টিকিট বিক্রেতা বাবলু রহমান বলেন, প্রতি রমজানে ঈদের আগাম টিকিট বিক্রির প্রথম দিনই অর্ধেকের বেশি বিক্রি হয়ে যায়। কিন্তু এবার বৃষ্টির কারণে যাত্রী নেই বলেই চলে। তবে বৃষ্টি কমলে যাত্রীর ভিড় বাড়বে বলে আশা করছেন তিনি। ঈদের আগের দিন পর্যন্ত সকাল থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত টিকিট বিক্রি চলবে বলে জানান বাবলু রহমান।

ঈদের আগে ভিড় হলে প্রতি বছর যাত্রী ভোগান্তি হয়। এ কারণে যাদের সুযোগ রয়েছে, তাদের আগেই পরিবারের সদস্যদেরকে পাঠিয়ে দিতে দেখা গেছে।

যবসায়ী সুজন তার স্বজনদেরকে নিয়ে গাবতলী এসেছিলেন বাসে তুলে দিতে। এত আগেই ঈদ করতে পরিবারের সদস্যদের পাঠিয়ে দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এখন রাম্তায় মানুষের ভিড় কম, ঈদের আগে আগে বাড়ি গেলে নারী ও শিশুদের কষ্ট হবে অনেক। এ কারণে তাদেরকে আগেভাগেই পাঠিয়ে দিলাম।’সুজন জানান, তিনি ঈদের দুই এক দিন আগে ঈদ করতে রওয়ানা হবেন বাড়ির পথে।সাইফুল ইসলাম পলাশ নামে একজন বলেন বলেন, ভিড় কম হওয়ায় প্রথম দিন চাহিদা অনুযায়ী টিকিট পাওয়া গেছে।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *